তৃষ্ণার হ্যাটট্রিকের দিনে অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ড সংগ্রহ

3

মিরপুর শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে গুটিকয়েক উপস্থিত দর্শক সাক্ষী হলেন নতুন ইতিহাসের। এই মাঠে নারীদের টি-টোয়েন্টিতে নতুন দলীয় সর্বোচ্চের রেকর্ড হলো মঙ্গলবার। বাংলাদেশের মেয়েদের কোনোপ্রকার পাত্তা না দিয়ে ব্যাট চালিয়েছেন অজি নারীরা। তবে একইদিনে তরুণ পেসার ফারিহা তৃষ্ণা পেয়েছেন হ্যাটট্রিকের দেখা। ইনিংসের শেষ তিন বলে এলিস পেরি, সোফি মলিনিউ এবং বেথ মুনির উইকেট নিয়ে হ্যাটট্রিকের দেখা পান তৃষ্ণা।

ফারিহা তৃষ্ণার এই দেশের ইতিহাসে তৃতীয় এবং তার নিজের দ্বিতীয়। এর আগে ২০২২ সালে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে প্রথম হ্যাটট্রিক করেছিলেন তিনি। এছাড়া বাংলাদেশের হয়ে হ্যাটট্রিক আছে শুধু ফাহিমা খাতুনের।

যদিও এর আগেই নিজেদের ব্যাটিং শক্তি দেখিয়েছে অজি নারীরা। গ্রেস হ্যারিস আর জর্জিয়া ওয়্যারহ্যামের দুর্দান্ত ব্যাটে ভর করে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ১৬১ রানের সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে জর্জিয়া ওয়্যারহ্যাম-গ্রেস হ্যারিসরা। শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে নারী ক্রিকেটে এটিই টি-টোয়েন্টির সর্বোচ্চ সংগ্রহ। মিরপুরে নারীদের টি-টোয়েন্টিতে দলীয় সর্বোচ্চের রেকর্ডটাও ছিল অজি নারীদেরই। ২০১৪ সালের বিশ্বকাপে ১৪০ রান করেছিল অজি নারীরা। নিজেদের সেই রেকর্ডের দশবছর পূর্তির ঠিক একদিন আগেই নতুন রেকর্ড গড়েছেন তারা।

টস জিতে এদিন আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন অজি অধিনায়ক অ্যালিসা হিলি। সাধারণত নিজে ওপেনার হলেও আজ শুরুতে আসেননি তিনি। ফিবি লিচফিল্ডের সঙ্গে পাঠিয়েছিলেন গ্রেস হ্যারিসকে। আর সেটা কাজেও লেগেছে দারুণভাবে। লিচফিল্ড ব্যর্থ হলেও হ্যারিস ঠিকই রান পেয়েছেন। ৪৭ রান করে অজি ইনিংসের ভিত গড়ে দিয়েছিলেন। তাকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন ৫৭ রান করা জর্জিয়া ওয়্যারহ্যম।

শেষদিকে এলিস পেরি খেলেছেন ২৯ রানের দারুণ এক ইনিংস। কিন্তু ইনিংসের শেষ তিন বলে সব আলো কেড়ে নেন তৃষ্ণা। দারুণ এক হ্যাটট্রিকে অজিদের ১৬১ রানেই আটকে রাখেন এই পেসার। পেরি এবং সোফি দুজনেই ক্যাচ আউটের শিকার হন। স্বর্ণা নিয়েছেন পেরির ক্যাচ। আর মুরশিদার হাতে ক্যাচ দেন সোফি মলিনিউ। আর শেষ বলে বেথ মুনিকে দারুণ এক ইনসুইং ডেলিভারিতে বোল্ড করেন তৃষ্ণা।

শুরু থেকেই এদিন আগ্রাসী ছিলেন গ্রেস হ্যারিস। ইনিংসের উড়ন্ত সূচনা এনে দেন তিনি। তবে তৃতীয় ওভারে ফিরে যান আরেক ওপেনার ফিবি লিচফিল্ড। তৃষ্ণার দিনের প্রথম শিকার এই ওপেনার। এরপরেই মূলত মিরপুরে ঝড় তোলেন জর্জিয়া এবং গ্রেস হ্যারিস। দুজন মিলে ৯ ওভারে তুলেছেন ৯১ রান। তাদের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে দিশেহারা ছিল বাংলাদেশের মেয়েরা।

১২তম ওভারে প্রথম আঘাত হানেন নাহিদা আক্তার। ফিফটি করা জর্জিয়াকে বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন এই স্পিনার। পরের ওভারেই জোড়া আঘাত ফাহিমার। অ্যাশলি গার্ডনার এবং গ্রেস হ্যারিসকে ফেরান ওই এক ওভারেই।

এরপরেই অবশ্য আরেকটা ভাল জুটি পায় অস্ট্রেলিয়া। এলিস পেরি এবং তাহলিয়া ম্যাকগ্রা দুজনেই ছিলেন আগ্রাসী। দলের স্কোর ১৫০ পেরোয় তাদের দুজনের সুবাদেই। ১৯তম ওভারে নাহিদা ফেরান তাহলিয়াকে। আর শেষ ওভারে দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক তুলে নেন ফারিহা তৃষ্ণা।