বিক্রির পূর্বাভাস ছুঁতে পারেনি পেপসিকো

0

সর্বশেষ প্রান্তিকে বিক্রিতে মিশ্র পরিস্থিতি দেখেছে বৈশ্বিক বেভারেজ ও স্ন্যাকস জায়ান্ট পেপসিকো। গতকাল কোম্পানির পক্ষ থেকে জানানো হয়, উত্তর আমেরিকায় খাদ্য ও পানীয়ের চাহিদা কমার প্রভাব পড়েছে জনপ্রিয় ব্র্যান্ডগুলোর বিক্রিতে। খবর সিএনবিসি।

এ সময় নেট বিক্রি দশমিক ৫ শতাংশ কমে ২ হাজার ৭৮৫ কোটি ডলার হয়েছে। এর আগে পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল, বিক্রি ১ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়ে ২ হাজার ৮৪০ কোটি ডলার হবে।

পেপসিকো চতুর্থ প্রান্তিকে ১৩০ কোটি ডলার বা শেয়ারপ্রতি ৯৪ সেন্টের নিট আয়ের তথ্য জানিয়েছে। যা এক বছর আগে ৫১ কোটি ৮০ লাখ ডলার বা শেয়ারপ্রতি ৩৭ সেন্ট ছিল।

প্রতিবেদনে বলা হয়, করোনা মহামারী-পরবর্তী সময়ে সরবরাহ চেইনে ব্যাপক ব্যাঘাতের সম্মুখীন হয় পেপসিকো। পাশাপাশি উৎপাদন খরচের প্রভাবে বেড়ে যায় দামও। এসব কারণে অনেকটা লক্ষ্যের চেয়ে পিছিয়ে পড়ে এ জায়ান্ট। ইউরোপের বৃহত্তম খাদ্য খুচরা বিক্রেতা ক্যারিফোর গত মাসে বলেছিল, অগ্রহণযোগ্য মূল্যবৃদ্ধির কারণে পেপসিকোর ব্র্যান্ডগুলো মজুদে রাখবে না তারা।

যুক্তরাষ্ট্রে কোম্পানির পানীয় ব্যবসা নভেম্বরে ৮ শতাংশ কমেছে এবং অক্টোবর ও ডিসেম্বরে কমার হার ৭ শতাংশ। কোম্পানিটি আশা করছে, বছরওয়ারি আয় কমপক্ষে ৪ শতাংশ বাড়বে। যদিও ২০২৩ সালের ৯ দশমিক ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধির তুলনায় এ হার অনেক কম।

তবে পেপসিকো সিইও র‍্যামন লাগুয়ার্তা এক বিবৃতিতে বলেছেন, গ্রাহক আচরণ প্রাক-মহামারী পর্যায়ে ফিরে আসছে। আশা করা যায়, শিগগিরই মূল্যস্ফীতির চাপ হ্রাস পাবে।