ডার্ক চকোলেটে সিসা ও ক্যাডমিয়াম কমানোর আহ্বান

4

ডার্ক চকোলেটে ক্ষতিকর মাত্রায় সিসা ও ক্যাডমিয়ামের উপস্থিতি পেয়েছে কনজিউমার রিপোর্টস। এরই প্রেক্ষিতে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের আগে এসব ধাতুর ব্যবহার কমাতে চারটি চকোলেট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের কাছে আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের অলাভজনক এ ভোক্তা সংগঠন। খবর রয়টার্স।

হার্শলে, মন্দেলেজ ইন্টারন্যাশনাল, থিও চকোলেট ও ট্রেডার জোসের কাছে লেখা চিঠিতে কনজিউমার রিপোর্টস জানায়, দীর্ঘমেয়াদে এসব ধাতু চকোলেটে ব্যবহার করা হলে তা স্নায়ুতন্ত্রের সমস্যা, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমানোর পাশাপাশি কিডনির মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। মানসিক ও শারীরিক বিকাশসংক্রান্ত ঝুঁকি থাকায় গর্ভবতী নারী ও ছোট শিশুদের জন্য এসব উপাদান বেশি বিপজ্জনক বলেও জানানো হয়। চিঠির সঙ্গে ৫৫ হাজারের বেশি পিটিশন স্বাক্ষর ছিল।

ডিসেম্বরে ২৮টি ডার্ক চকোলেটের বার পরীক্ষার পর একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে কনজিউমার রিপোর্ট। সেখানে ২৩টি বারে ক্ষতিকর মাত্রায় সিসা ও ক্যাডমিয়াম কিছু ক্ষেত্রে দুটি উপাদান ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে। যারা দিনে এক আউন্সের বেশি চকোলেট খায়, তাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি বেশি।

পাঁচটি চকোলেট বারের মধ্যে থিওর দুটিতে, হার্শলের মালিকানাধীন লিলিস ও মন্ডেলেজ-মালিকানাধীন গ্রিন অ্যান্ড ব্ল্যাকসের একটিকে এবং ট্রেডার জোসের একটিতে উচ্চমাত্রায় এ দুটি ধাতু পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনে কনজিউমার রিপোর্টস জানায়, ডার্ক চকোলেটে চিনির পরিমাণ কম থাকায় ও স্বাস্থ্য উপকারিতার জন্য অনেক ভোক্তা এটি গ্রহণ করে। কিন্তু সিসা ও ক্যাডমিয়ামের মতো ভারী ধাতু সেবনে কোনো উপকারিতা নেই। এ বিষয়ে চকোলেট উৎপাদনকারীদের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

ন্যাশনাল কনফেকশনার্স অ্যাসোসিয়েশন জানায়, কনজিউমার রিপোর্টস ক্যালিফোর্নিয়া হেলথ গাইডলাইনের যেসব নীতি ব্যবহার করেছে, সেগুলো ফুড সেফটি সম্পর্কিত নয়। যে কারণে প্রচলিত সব চকোলেটই স্বাস্থ্যকর।

কনজিউমার রিপোর্টসের প্রতিবেদন প্রকাশের পর ট্রেডার জোসকে ভোক্তারা নয়বার আদালতে তলব করেছে। গোদিভা ও লিনডটের তথ্যানুযায়ী, হার্শলে ও মন্দেলেজকেও একই কারণে তলব করা হয়েছে।