২০০২ সপ্তদশ বিশ্বকাপ: ব্রাজিলের পেন্টা জয়

0

প্রথমবারের মতো এশিয়ার কোন দেশে বিশ্বকাপের আসর বসে। তবে এককভাবে কোন দেশ আয়োজন করতে পারেনি। জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া যৌথভাবে আয়োজন করে বিশ্বকাপের সপ্তদশ আসর। এই আসরে ব্রাজিলের শিরোপা জয় করে ইতিহাস গড়ে। কারণ এর আগে কোনো দেশই পাঁচটি শিরোপা জিততে পারেনি। যাত্রা শুরু ঠিক ছয় যুগ পর এশিয়ার কোন দেশ আয়োজক হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করে।

এই একবারই যৌথভাবে বিশ্বকাপ আয়োজন করে। এই বিশ্বকাপের আগেই ফিফা ঘোষণা করে আর কখনোই যৌথ আয়োজক দেবে না তারা। সে কারণে প্রথম ও একমাত্রবারই এমনটি ঘটেছে ফুটবলে। ফাইনালে ব্রাজিল ২-০ গোলে জার্মানিকে হারিয়ে পেন্টা জয় করে।

বাছাইপর্বে দলের দুর্দিনের কাণ্ডারি রোমারিওকে চূড়ান্ত দলে অগ্রাহ্য করেন কোচ লুই ফিলিপে স্কলারি। এমনকি দেশটির প্রেসিডেন্টের অনুরোধও রাখেননি। তবে বিশ্বকাপের শিরোপা জিতে এসব কিছুকে এক তুরিতে উড়িয়ে দেয়। যা একটা ইতিহাসও বটে।

১৯৯৮ বিশ্বকাপের ফাইনালে রহস্যজনকভাবে নীরব থাকা রোনালদোই জাপান-কোরিয়ায় দুর্দান্ত খেলেন। আট গোল করে জিতে নেন সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার। তবে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স প্রথম ম্যাচে সেনেগালের কাছে ১-০ গোলে হেরে বিদায় নেয় প্রথম রাউন্ড থেকে। উরুগুয়ের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করার পর ডেনমার্কের কাছে ২-০ গোলে পরাজিত হয়ে সবার আগে দেশের বিমানের টিকিট কাটে জিনেদিন জিদানরা। বিশ্বকাপের অভিষেকেই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের বিদায় করে দারুণ এক নাচ দিয়েছে সেনেগালিজরা।

একনজরে ২০০২ বিশ্বকাপ

স্বাগতিক : দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান

চ্যাম্পিয়ন : ব্রাজিল (পঞ্চম শিরোপা জয়)

রানার্সআপ : জার্মানি

তৃতীয়স্থান : তুরস্ক

চতুর্থ স্থান : দক্ষিণ কোরিয়া

সময়কাল : ৩১ মে-৩০ জুন ২০০২

অংশগ্রহণকারী দল : ৩২টি (ডেনমার্ক, সেনেগাল, উরুগুয়ে, ফ্রান্স. স্পেন, প্যারাগুয়ে, দক্ষিণ আফ্রিকা, স্লোভেনিয়া, ব্রাজিল, তুরস্ক, কোস্টারিকা, চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, পতুর্গাল, পোল্যান্ড, জার্মানি, আয়ারল্যান্ড, ক্যামেরুন, সৌদি আরব, সুইডেন, ইংল্যান্ড, আর্জেন্টিনা, নাইজেরিয়া, মেক্সিকো, ইতালি, ক্রোয়েশিয়া, ইকুয়েডর, জাপান, বেলজিয়াম, রাশিয়া ও তিউনিশিয়া)

ভেন্যু : ২০টি (২০টি শহরে)

মোট ম্যাচ : ৬৪টি

গোল সংখ্যা : ১৬১ (ম্যাচ প্রতি ২.৫২টি)

দর্শক সংখ্যা : ২৭,০৫,১৯৭ (ম্যাচ প্রতি ৪২,২৬৯ জন)

সর্বোচ্চ গোলদাতা : রোনালদো, ব্রাজিল (৮ গোল)

সেরা খেলোয়াড় : অলিভার কান (জার্মানি)

সেরা যুব খেলোয়াড় : ল্যান্ডন ডনোভ্যান (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র)

সেরা গোলরক্ষক : অলিভার কান (জার্মানি)

ফেয়ার প্লে ট্রফি : বেলজিয়াম